home top banner

স্বাস্থ্য টিপ

চুল গজানোর ৫ টি গৃহ চিকিৎসা
১০ অক্টোবর, ১৩
Tagged In:  hair care  
  Viewed#:   175160   Comments#:   2   Favorites#:   5

অনেক মহিলারা, এমনকি কিছু পুরুষও লম্বা রাখা পছন্দ করেন। চুলের অনেক সুন্দর স্টাইল আছে কিন্তু এর কোনটিই লম্বা এবং স্বাস্থ্যবান চুলের মত সুন্দর নয়। এ সত্বেও অনেক মহিলা এবং পুরুষকে চুল পরা নিয়ে চিন্তিত থাকতে দেখা যায়। এরা প্রত্যেকেই চুল পরার মত হতাশাজনক বিষয়টিকে পরাস্ত করে দ্রুত নতুন চুল গজানোর উপায় জানতে চায়। দুর্ভাগ্যবশত, আপনি যেমন চান তেমন বড় করে চুল জন্মানো বেশ কষ্টকর হতে পারে। আপনার চুল গজাবে তা যদি আপনি চান, তবে উল্লেখযোগ্য কোনও পরিবর্তনের দেখা পেতে কয়েক মাস অপেক্ষা করতে হবে। ডাক্তার এবং বিজ্ঞানী উভয়েরাই এখন পর্যন্ত চুল দ্রুত গজানোর সহজ কোনও উপায় বের করতে হিমসিম খেয়ে যাচ্ছেন, কিন্তু সৌভাগ্যের ব্যাপার যে বেশ কিছু গৃহ চিকিৎসা আছে যা দ্বারা আপনার দ্রুত চুল গজাতে সাহায্য করবে। এই নিবন্ধে কয়েকটি গৃহ চিকিৎসার উল্লেখ করা হয়েছে যেগুলি আপনাকে স্বাভাবিক চুল গজানোতে সাহায্য করতে উৎসাহিত করবে।
 
গৃহ চিকিৎসা ১: গরম তেল মালিশ
চুলে তেল দেয়ার সময়, একে আপনি এর জন্য প্রয়োজনীয় ভিটামিন এবং পুষ্টি উপাদান দিচ্ছেন। এটি ব্যবহারে একটি উজ্জ্বল ভাব এনে দেয়। ত্বকের কারণে অনেকে নিয়মিত চুলে তেল দিয়ে মালিশ করার অনুভুতি উপভোগ করতে পারেন না। দৈনিক কয়েকবার চুলে তেল না দিয়ে, সহজেই আপনি মাথায় একবার গরম তেল মালিশ করতে পারেন। নারিকেল তেল, ক্যাস্টর অয়েল, এবং এমনকি জলপাই তেলও কোন কোন প্রকারের চুলে ব্যবহার করতে পারেন। এটি আপনার চুলকে পুষ্টি যুগিয়ে শক্তিশালী করতে সাহায্য করবে। ফলাফল স্বরূপ, এসকল চুল বৃদ্ধিকারক তেলের কারণে আপনার চুল আরও দ্রুত হারে বৃদ্ধি পেতে থাকবে।
 
গৃহ চিকিৎসা ২: আলু
আপনি হয়ত বিস্মিত হবেন, “আলু? কিভাবে আলু আমার চুলের বৃদ্ধি দ্রুত করতে সাহায্য করবে?” বিস্ময়কর মনে হলেও, চুলের বৃদ্ধি ত্বরান্বিত করতে আলু একটি উপযুক্ত উপাদান। এখন, আপনি একটি আলু নিয়ে মাথায় ঘষে সহজেই ফলাফল আশা করতে পারেন না, এটা কার্যকরী হওয়ার জন্য আপনাকে তিনটি আলু নিয়ে জুসারে দিয়ে রস বের করে তা ছেঁকে নিতে হবে। এরপর অবশ্যই এতে একটি ডিমের কুসুম, অল্প একটু পানি, এবং এক চা চামচ মধু যোগ করতে হবে। এই মিশ্রণটি নিয়ে ভেজা চুলে প্রয়োগ করতে হবে। ৩০ মিনিট অপেক্ষা করে আলতো ভাবে উষ্ণ পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। কয়েক মাস ধরে প্রতি সপ্তাহে একবার করে এ চিকিৎসা চালিয়ে যেতে হবে। এটা একটি অন্যতম কার্যকরী গৃহ চিকিৎসা এবং করা সহজও বটে। আপনি নিশ্চিত হতে পারেন যে এ পদ্ধতি ব্যবহার করে কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই ফলাফল দেখতে পাবেন।
 
গৃহ চিকিৎসা ৩: পিয়াজ!
হ্যাঁ, পিয়াজ। এটি অপর একটি খাদ্যপন্য যা আপনার চুলের জন্য উপযুক্ত এবং যতটা সম্ভব স্বাস্থ্যবান হতে সাহায্য করবে। যখন আপনার চুল এর সর্বচ্চো ভাল স্বাস্থ্যে থাকবে, তখন এর কারণে বৃদ্ধি পাবে এবং পরিপূর্ণ হবে। এটি একটি অন্য প্রকার মিশ্রণ যা চুলে অবশ্যই প্রয়োগ করতে হবে এবং তা  প্রতিবার আপনার চুল ধোয়ার সময়। তবে, এ মিশ্রণটি আপনি যদি চুলে রঙ করার সামগ্রী ব্যবহার করেন তবে ব্যবহার করা উচিত হবে না কারণ এতে করে রঙ উঠে যেতে পারে। প্রথমে, ৪ কোষ রসুন, ২ টুকরা দারুচিনি, এবং একটি লাল পিয়াজ নিন। এগুলি নিয়ে সিদ্ধ করে ঠাণ্ডা হতে দিন। এটি ঠাণ্ডা হলে মিশ্রণটি সমস্ত চুলে মালিশ করুন। এটি চুলে ১৫ মিনিট বসে থাকতে দিন, তারপর হালকা গরম পানি দিয়ে আলতো করে ধুয়ে ফেলুন। এটা করার কারণে আপনার চুল আরও ঘন হবে এবং এর ডগা গুলি ফেটে যাবে না। এটি দীর্ঘমেয়াদী ভাবে আপনার চুলকে দীর্ঘায়িত করবে। এটি আপনার চুলকে আরও দ্রুত হারে ঘন করে তুলবে। এসকল পুষ্টি উপাদান এবং ভিটামিন চুলকে দিয়ে আপনি একে আরও দ্রুত বাড়তে সাহায্য করতে পারেন এবং এর সাথে এগুলি স্বাস্থ্যবান এবং পরিপূর্ণ হয়ে উঠবে।
 
গৃহ চিকিৎসা ৪: একটি ভাল খাদ্য তালিকা
যখন চুলের বৃদ্ধির মত বিষয় নিয়ে চিন্তা করা হয়, তখন খুব সহজ কিছু কার্যকরী সমাধানের দিকে দৃষ্টি দেয়া হয়। যদিও এটি কোন নিশ্চয়তা দেয়া যায় না যে এতে চুল দ্রুত বাড়বে এবং দীর্ঘ হবে, তবে এটি সবসময়েই আপনার চুলের জন্য উপকারী হবে এবং এর সকল প্রক্রিয়াকে সাহায্য করবে। একটি ভাল খাদ্য তালিকা অনেক কারণে গুরুত্বপূর্ণ। এটি আপনার চুলকে স্বাস্থ্যবান রাখে এবং স্বাস্থ্যবান চুল সবসময়েই বৃদ্ধি পায়। এটি আরও ঘন এবং পরিপূর্ণ হয় এবং একে আরও দীর্ঘায়িত দেখায়। একটি ভাল খাদ্য তালিকা যা আপনার মাথার চামড়া এবং চুলকে সাহায্য করবে তার মধ্যে  বাদাম, শস্যকণা, দই, ব্রকলি, গাজর, এবং আরও অনেক রকমের ফল থাকতে পারে। অস্বাস্থ্যকর খাবার আপনার চামড়া এবং চুল উভয়কেই আস্বাস্থ্যকর তেল সরবরাহ করতে পারে যা চুলের ক্ষতি করে। যখন আপনার চুল ক্ষতিগ্রস্থ এবং অস্বাস্থ্যকর হবে, তখন এর বৃদ্ধি পাওয়া কঠিন হবে এবং দেখতে অনাকর্ষণীয় মনে হবে। এটি একটি খুব সহজ সমাধান, কিন্তু এটি চালিয়ে যেতে অনেক সাধনার প্রয়োজন। যদি আপনি আপনার খাদ্য তালিকা পরিবর্তন করে এতে চুলের বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় উপাদান সমৃদ্ধ খাবার যোগ করেন তবে অবশ্যই আপনি বেশ ভাল ফলাফল দেখতে পাবেন।
 
গৃহ চিকিৎসা ৫: ভিটামিন!
আপনার চুল দ্রুত স্বাস্থ্যবান হয়ে ওঠার একটি চমৎকার উপায় হল চুলের বৃদ্ধির জন্য ভিটামিন ব্যবহার করা। সব সময়েই চুলের যত্ন প্রয়োজন তবে ভিটামিন গ্রহণ করে চুলের বৃদ্ধির প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করা যেতে পারে। চুলের সম্পুরক উপাদান সমূহ দ্রুত এতে প্রবেশ করে এবং বিস্ময়কর ভাবে কাজ করে। আপনার নিয়মিত ভাবে ফলিক এসিড পিল এবং চুল গজানোর Biotein গ্রহণ করা উচিত। এটি আপনার চুলকে শক্তি যোগায় এবং তা বেশ পরিমাণে বাড়িয়ে দেয়। ভিটামিন A, E এবং C মসৃণ ও রেশমি চুলের জন্য চমৎকার। আপনার খাদ্য তালিকার পরিবর্তন বা যে কোন প্রকারের সম্পুরক উপাদান গ্রহনের পূর্বে চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করে নিন। এ ধরণের সকল পন্য খুঁজে পাওয়া বেশ সহজ এবং আপনার চুলের উৎসাহজনক স্বাস্থ্য এবং বৃদ্ধির জন্য বেশ উপযোগী।
 
যদি আপনার দীর্ঘায়িত চুলের আকাংখা থাকে তবে এ সকল চুল বৃদ্ধির টিপস সমূহ অনুসরণ করার এখনই সময়। এসকল চুল বৃদ্ধির গৃহ চিকিৎসা সমূহ অনুসরণ করার মাধ্যমে আপনি মাত্র কয়েক সপ্তাহের মধ্যে নিশ্চিত ফল পেতে পারেন। আপনার চুল বৃদ্ধির জন্য সবচেয়ে ভাল উপায় হল তা যতটা সম্ভব স্বাস্থ্যবান রাখা এবং এরকম কিছু পদ্ধতি ব্যবহার করে আপনার চুলের বৃদ্ধির হার বজায় রাখা। আমরা চাই বা না চাই, আমাদের চেহারায় চুলের একটি বিরাট ভুমিকা আছে।  দেখতে ভাল দেখানর জন্য আমাদের অবশ্যই স্বাস্থ্যবান, দীর্ঘ চুল থাকতে হবে।
 

Please Login to comment and favorite this Health Tip

Comments

Tammana Tabasum | Jun 17, 2015

ভাল একটা টিপ

Jobaer Hossen | Dec 5, 2015

থাঙ্কস ফর গ্রেট tips

Next Health Tips: চুল ঝরে পরা প্রতিরোধের ১৮ টি কার্যকর গৃহ চিকিৎসা
Previous Health Tips: হাঁটু এবং কনুইয়ের কাল দাগ থেকে মুক্তির কার্যকর ১৫ টি টিপস

আরও স্বাস্থ্য টিপ

রোজায় কী খাবেন আর কী খাবেন না

রমজান মাসে সবাই খাবারের প্রতিযোগিতা নেমে পড়ে। কে কত খেতে বা রান্না করতে পারে। কিন্তু এসব ভাজা-পোড়া, গুরুপাক খাবার খেয়ে কী হতে পারে, তা কি জানি? সারা দিন রোজা রেখে পাকস্থলী খুব ক্ষুধার্ত ও দুর্বল থাকে। তারপর যদি এত রকম গুরুপাক খাবার একসঙ্গে খাওয়া হয়, তাহলে কী অবস্থা হবে? পেটের সমস্যা,... আরও দেখুন

রোজায় বদ হজমের সমস্যা এড়াতে কিছু টিপস

পরিপূর্ণ পরিপাক ছাড়া স্বাস্থ্য ভালো হয় না। আমাদের পরিপাক নালী ইমিউন সিস্টেমেরও একটি বড় অংশ। আমরা কী ধরণের খাবার পছন্দ করছি, কত দ্রুত খাচ্ছি এবং ভালোভাবে চিবিয়ে খাচ্ছি কিনা সে ব্যাপারে অমনোযোগী থাকার কারণে রোজায় পরিপাকের সমস্যা বৃদ্ধি পেতে পারে। পরিপাকের সমস্যার কারণে আপনার রোজার যেন কোন... আরও দেখুন

রোজায় ডিহাইড্রেশন প্রতিরোধের ৫ উপায়

  পবিত্র মাস রমজানের রোজা রাখার পূর্বে ও ইফতারের পরে সুষম খাদ্য খাওয়া এবং হাইড্রেটেড থাকা প্রয়োজন। তাহলেই আপনি সারাদিনে কর্মশক্তি পাবেন। রোজা ভাঙার পরে পানি পান করা গুরুত্বপূর্ণ, শরীরের কাজ ঠিকভাবে সম্পন্ন হওয়ার জন্য। রোজার রাখার পূর্বে অর্থাৎ  সেহরিতে পর্যাপ্ত পানি পান না করলে... আরও দেখুন

গরমে ত্বক সুস্থ রাখবেন যে ১০ উপায়ে

এ সময়টা প্রচণ্ড গরম। আর এই গরমে শুধু শারীরিক সুস্থতা নয়, চাই ত্বকের যত্নও। গরমের কারণে ত্বকের নানা ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। এই সমস্যাগুলো থেকে সুরক্ষিত থাকতে গরমে চাই ত্বকের বাড়তি যত্ন। চলুন জেনে নেয়া যাক এই গরমে ত্বক সতেজ ও সুন্দর রাখার কিছু টিপস। # মুখের যত্ন: গরমের সময়টাতে... আরও দেখুন

ইফতারের জন্য ৫ স্বাস্থ্যকর জুস

বিভিন্ন দেশের রোজার সময়ে পার্থক্য দেখা যায়। আমাদের দেশে এবার রোজার সময় ১৫ ঘন্টা। গরমে এত দীর্ঘ সময় পানি পান করা ছাড়া থাকলে শরীরের উপর প্রভাব পরে। ফলে ইফতারের সময় প্রচণ্ড তৃষ্ণা অনুভব করেন আপনি। তাই ইফতারে তৃষ্ণা মেটানোর পাশাপাশি আপনাকে সতেজতা দিতে পারে এমন পানীয় পান করা উচিৎ আপনার। চলুন... আরও দেখুন

অ্যাসিডিটির সমস্যা দূর করার ঘরোয়া ৭ উপায়

রোজার সময় যেসকল শারীরিক সমস্যা বেশি দেখা দেয় তার মধ্যে অ্যাসিডিটি অন্যতম। সারাদিন রোজা রাখার পর ইফতারে ভাজাপোড়া খাওয়ার কারণে এই সমস্যা দেখা দেয়। বিশেষ করে যাদের গ্যাস্টিকের সমস্যা রয়েছে তাদেরকে এই সমস্যার সম্মুখিন হতে হয় অনেক বেশি। এই অ্যাসিডিটি থেকে মুক্তির জন্য অনেকেই ওষুধের দ্বারস্থ হোন।... আরও দেখুন

healthprior21 (one stop 'Portal Hospital')