home top banner

স্বাস্থ্য টিপ

গর্ভাবস্থায় শিশুর নড়াচড়ার বিষয়ে জানুন
০১ অগাস্ট, ১৭
Tagged In:  pregnancy step  pregnancy care  pre pregnancy  
  Viewed#:   15728

baby-movements-during-pregnancy

প্রতিটা হবু মা তাঁর গর্ভের সন্তানের অস্তিত্বের অনুভূতি টের পান যখন গর্ভস্থ শিশু পা ছোঁড়াছুড়ি করে। শিশুর এই নড়াচড়াই তাঁর বৃদ্ধি ঠিক মত হচ্ছে এটার ইঙ্গিত বহন করে। যদিও শিশু মায়ের গর্ভে থাকাকালীন নড়াচড়া এবং  লাথি মারা ছাড়াও অন্যান্য কাজও করে থাকে যেমন – ঘুমানো, খেলা করা, হামি দেয়া, ঢোক গেলা এবং চোখ পিটপিট করা ইত্যাদি। শিশুর নড়াচড়ার এই অভিজ্ঞতাটি গর্ভাবস্থার একটু দেড়িতেই হতে দেখা যায়। যদিও এটি শুরু হয় গর্ভধারণের ৭-৮ সপ্তাহের মধ্যেই। গর্ভাবস্থায় ভ্রূণের নড়াচড়া বা লাথি মারার   বিষয়ে আরো কিছু বিষয় জানা থাকা ভালো মায়েদের যেমন-

১। কখন একজন মা গর্ভের শিশুর নড়াচড়া টের পান?
গর্ভাবস্থার ১৮ থেকে ২৪ সপ্তাহের মধ্যে শিশু নড়াচড়া করা শুরু করে। সাধারণত নতুন মায়েরা ২৪ সপ্তাহের আগে এটা তেমন বুঝতে পারেন না। কারণ শিশুর লাথি মারাটা শক্তিশালী হয়না এবং অনেক মায়েরাই অন্য স্বাস্থ্য সমস্যার কারণে এই সূক্ষ্ম অনুভূতিকে বুঝতে পারেন না। অন্যদিকে ২য় বা ৩য় বারে যারা মা হচ্ছেন তারা খুব দ্রুতই এটা বুঝতে পারেন।

২। ভ্রুনের এই লাথি মারা কী গর্ভে তাদের সক্রিয়তাকে প্রমাণ করে?   
বেশীরভাগ শিশুই সারাদিনে বিভিন্নভাবে সক্রিয় থাকে। সাধারণভাবে দেখা যায় যে, মায়ের খাবারের পরে, ব্যায়াম বা উচ্চ শব্দ হলে গর্ভস্থ শিশু নড়াচড়া করে। তাই মায়ের উচিত গর্ভস্থ শিশুর নড়াচড়ার বিষয়টি বুঝার চেষ্টা করা যাতে তার বিশ্রাম ও সক্রিয়তার বিষয়টি অনুমান করতে পারেন তিনি। তাই গর্ভস্থ শিশু  যখন সক্রিয় থাকে তখন তার সাথে সংযোগ তৈরি করার চেষ্টা করুন তার সাথে কথা বলে, গান গেয়ে বা বই পড়ে। শিশুর নড়াচড়াকে ভালোভাবে বোঝার জন্য খাওয়ার পরে বা ব্যায়ামের পরে পিঠে ঢেস দিয়ে আরাম করে বসুন।

৩। শিশুর লাথি মারার সংখ্যা কী গোণার প্রয়োজন আছে?
কিছু ক্ষেত্রে ভ্রূণের নড়াচড়াকে গোণা গুরুত্বপূর্ণ। তবে এই সংখ্যা একেক শিশুর ক্ষেত্রে একেক রকম হতে পারে। প্রসবের সময় ঘনিয়ে আসার সময় শিশুর নড়াচড়া কমে আসে কারণ তখন গর্ভের ভেতরের স্থান কমে যায়। গর্ভাবস্থায় ঝুঁকিতে থাকেন  যারা তাদের গর্ভস্থ শিশুর নড়াচড়ার হিসাব রাখা জরুরী। যারা কম ঝুঁকিতে থাকেন তাদের ক্ষেত্রেও শিশুর নড়াচড়া কমে যাওয়াটা একটা সতর্ক সংকেত।

৪। ভ্রূণের নড়াচড়া কমে যাওয়া বা বৃদ্ধি পাওয়ার ক্ষেত্রে যা করবেন

ভ্রূণের নড়াচড়া বা লাথি মারা এটাই নির্দেশ করে যে গর্ভস্থ শিশুটি সুস্থ এবং সক্রিয় আছে। কিন্তু খুব বেশি নড়াচড়া করাও তার ভালো স্বাস্থ্যের লক্ষণ নয়। তাই শিশুর নড়াচড়া কমে গেলে বা বৃদ্ধি পেলে চিকিৎসকের সাথে কথা বলাই সবচেয়ে ভালো।

৫। শিশুর নড়াচড়া কমে গেছে বুঝবেন কীভাবে?
শিশু যখন সক্রিয় থাকে তখন তার দুটি নড়াচড়ার মধ্যবর্তী বিরতি খুব কম  থাকে। তাই যখনই আপনার মনে হবে যে শিশুর নড়াচড়ার হার কমে গেছে তখন শিশুর ২ ঘন্টার নড়াচড়ার প্রতি খেয়াল রাখুন। যদি আপনার মনে হয় যে এই সময়ে তার ১০ টি নড়াচড়া কমে গেছে তাহলে পরবর্তী দুই ঘন্টাও খেয়াল রাখুন। যদি উল্লেখযোগ্য কোন পরিবর্তন দেখা না যায় তাহলে দ্রুত চিকিৎসকের শরনাপন্ন হোন।

৬। কীভাবে শিশুর নড়াচড়ার রেকর্ড রাখা যায়?
যখন থেকে আপনি শিশুর নড়াচড়া লক্ষ্য করা শুরু করবেন তখন থেকে প্রথম নড়া এবং ১০ম নড়ার মধ্যকার সময়টা লিখে রাখুন। এতে শিশুর লাথি মারা,  ঘোরা এবং শব্দ করা এ সব কিছুই অন্তর্ভুক্ত থাকবে।  

৭। শিশুর নড়াচড়া কমে গেলে কী করবেন?
বিভিন্ন কারণে শিশুর নড়াচড়া কমে যেতে পারে, যার জন্য প্রথমেই অস্থির হওয়ার কোন কারণ নেই। এক্ষেত্রে আপনার করণীয় হচ্ছে –
# কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিন অথবা হাঁটুন। কখনো কখনো মা স্ট্রেসে ভুগলে বা অসক্রিয়ভাবে থাকলেও গর্ভস্থ শিশু ঘুমিয়ে থাকতে বা নিষ্ক্রিয় থাকতে পারে কিছুক্ষণের জন্য।
# ঠান্ডা খাবার যেমন- আইসক্রিম বা মিল্ক শেক খেতে পারেন। এই ঠান্ডাভাব বা গর্ভের ভেতরে তাপের পরিবর্তন শিশুকে নড়াচড়ায় বাধ্য করতে পারে।
# গান শুনুন বা শিশুর সাথে কথা বলুন। প্রায়ই বাইরের কোন উদ্দীপক  যেমন- উচ্চ শব্দ শিশুকে নড়াচড়ায় উৎসাহিত করে এবং শিশু লাথি মারে।

৮। কখন শিশুর নড়াচড়ার বিষয়ে চিন্তিত হবেন?
কিছু লক্ষণ শিশুর নড়াচড়ার বিষয়ে চিন্তিত হওয়ার কারণ, যেমন-
# ২ ঘন্টার ব্যবধানে যদি শিশুর ১০ টি নড়াচড়া কম হয় তাহলে তা চিন্তার বিষয়।
# শব্দ বা পিতামাতার কন্ঠও যদি শিশুর নড়াচড়ার লক্ষণ দেখা না যায় তাহলে তা উদ্বেগের বিষয়।
# পর পর দুই শিশুর নড়াচড়া কমতে থাকলে তা চিন্তার বিষয়। তখন দ্রুত চিকিৎসকের সাহায্য নেয়া প্রয়োজন।
 

সূত্র: দ্যা হেলথ সাইট

Please Login to comment and favorite this Health Tip
Next Health Tips: আপনার ঝিমুনি আসার কারণগুলো কী?
Previous Health Tips: মধু-দারুচিনির মিশ্রনের উপকারিতা জানেন তো?

আরও স্বাস্থ্য টিপ

গর্ভাবস্থায় অবশ্যই ব্যবহার করবেন না এসব প্রসাধনী

গর্ভাবস্থায় কী করা যাবে, কী করা যাবে না তা আসলে সবাই জানেন কম বেশি। খাবার ভালো করে রান্না করে খেতে হবে, আনারস-পেঁপে খাওয়া যাবে না, ক্ষুধার্ত থাকা যাবে না, যে কোন ওষুধ খাওয়ার আগে ডাক্তারের সাথে কথা বলতে হবে, হিল জুতো পরা যাবে না- আরো কত কী! কিন্তু আরেকটি দিক আপনার মোটেই খেয়াল নেই, তা হলো... আরও দেখুন

আপনার যে বদঅভ্যাস চেহারায় এনে দিচ্ছে বয়সের ছাপ সহ নানা সমস্যা!

আপনি হয়তো বিস্মিত হতে পারেন এই কথা ভেবে যে, ঠিক কোন বদঅভ্যাসটির জন্যে চেহারার মাঝে দ্রুত বয়সের ছাপ চলে আসা সহ নানাবিধ সমস্যা দেখা দিতে পারে! সঠিক খাদ্যাভাসের সমস্যা, পানি কম খাওয়ার সমস্যা, নাকি ঘুম কম হবার সমস্যা? এই সকল কারণ অবশ্যই চেহারার লাবণ্য নষ্ট করার জন্য এবং মুখের ত্বকের নানান রকম... আরও দেখুন

পায়ে ফোসকা পরা রোধে দারুণ একটি টিপস

আমাদের চেষ্টা থাকে এমন কিছু কৌশল উপস্থাপন করার, যা কিনা আপনাদের নিত্যদিনের কাজে লাগে খুব। তারই ধারাবাহিকতায় আজ রইলো দৈনন্দিন জীবনের সাথে জড়িত একটি টিপস। পড়েই দেখুন, হয়তো ভীষণ কাজে লেগে যাবে আপনারও। # নতুন জুতোর কথা ভাবলেই অনেকের মন ভালো হয়ে যায়, বিশেষ করে মেয়েদের। বিভিন্ন স্টাইল ও... আরও দেখুন

টুথপেস্টের এই দারুণ ব্যবহারগুলো আপনি জানেন তো?

টুথপেস্ট এমন একটি সামগ্রী যা আপনি দিনে দু’বার ব্যবহার করেন এবং ডেন্টাল স্বাস্থ্য রুটিনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান এটি। তবে দাঁত পরিষ্কার, শুভ্র এবং স্বাস্থ্যবান রাখার পাশাপাশি টুথপেস্ট ঘরদোরের অনেক টুকিটাকি কাজেও লেগে থাকে। সত্যি কথা বলতে, বিভিন্ন ধরনের কাজে টুথপেস্ট ব্যবহার করলে... আরও দেখুন

ভাজাভুজি খেলে কেন মোটা হয়?

রোগা হতে চাইলে সবচেয়ে আগে মাখন, ভাজাভুজি, চর্বি খাওয়া ছাড়তে হবে। কেন বলুন তো ডায়েটিশিয়ান, ডাক্তারেরা এই কথা বলে থাকেন? নতুন এক গবেষণা জানাচ্ছে, এই সব খাবার আসলে আমাদের খিদে বাড়িয়ে দেয়। নেপলস ফ্রেডরিকো টু বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানাচ্ছেন, এই সব খাবারে থাকা স্যাচুরেটেড ফ্যাট আমাদের... আরও দেখুন

রসুন খেয়ে সুস্থ থাকুন

রসুনকে শুধু রান্নার উপকরণ ভাবলে ভুল হবে। খাবারে স্বাদ বাড়ানো ছাড়াও এর রয়েছে নানা গুণ। রোগ প্রতিরোধে বহু প্রাচীনকাল থেকেই রসুনের ব্যবহার হয়ে আসছে। # নিয়মিত রসুন খেলে যকৃৎ এবং মূত্রাশয় সুস্থ থাকে। ডায়রিয়া,গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা ও ক্ষুধামান্দ্য দূর করতেও সাহায্য করে। # রসুন খেলে মানসিক চাপ... আরও দেখুন

healthprior21 (one stop 'Portal Hospital')