home top banner

স্বাস্থ্য টিপ

পেট ফাঁপার সমস্যায় এই খাদ্যগুলো পরিবর্তন করুন
০২ জানুয়ারী, ১৭
Tagged In:  flatulence  constipation problem  
  Viewed#:   3089

flatulence-problems

অনুপযুক্ত খাবার খাওয়া পেট ফাঁপার একটি সাধারণ কারণ। ঔষধ খাওয়ার পরিবর্তে খাদ্যাভ্যাসের কিছু পরিবর্তনই পারে আপনার পেট ফাঁপার সমস্যাটি থেকে আপনাকে মুক্তি দিতে। প্রায় ১৬ থেকে ৩০ শতাংশ মানুষ নিয়মিতই পেট ফাঁপার সমস্যায় ভুগে থাকেন। কখনো কখনো এটি হতে পারে মারাত্মক কোন স্বাস্থ্য সমস্যার লক্ষণ। তবে বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই খাওয়ার কারণে হয়ে থাকে পেট ফাঁপার সমস্যা। এমন অনেক খাবার আছে যা পেট ফাঁপার জন্য দায়ী। আবার কিছু খাবার আছে যা পেট ফাঁপার সমস্যা দূর করার জন্য কার্যকরী। পেট ফাঁপার সমস্যা থেকে মুক্ত থাকার জন্য যে খাবারগুলো খাওয়া উচিৎ সেগুলোর বিষয়েই জানবো আজ।

১। গরুর দুধের পরিবর্তে সয়া দুধ
যাদের ল্যাক্টোজ ইন্টলারেন্সের কারণে পেট ফাঁপার সমস্যায় ভোগতে দেখা যায় তাদের উচিৎ গরুর দুধের পরিবর্তে সয়া দুধ পান করা। এর ফলে আপনার পেট ফাঁপার সমস্যা থেকে মুক্ত থাকার পাশাপাশি প্রোটিনের চাহিদাও পূরণ হবে।

২। তরমুজ ও আপেলের পরিবর্তে কলা ও স্ট্রবেরি
যাদের পেট ফাঁপার সমস্যা আছে তারা স্ন্যাক্স হিসেবে আপেল খাওয়ার পরিবর্তে কলা অথবা স্ট্রবেরি খেতে পারেন। কলা ও স্ট্রবেরি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও ফাইবারে সমৃদ্ধ যা হজমে সাহায্য করার পাশাপাশি আপনার আপনার পেট ফাঁপার সমস্যার উন্নতিতেও সাহায্য করতে পারে।

৩। রসুনের পরিবর্তে আদা
রসুন খুব দ্রুত ব্যাকটেরিয়ার দ্বারা ফারমেন্টেড হয় বলে গ্যাস সৃষ্টি করে। আদা প্রদাহ রোধী ও বমি রোধী প্রকৃতির বলে পেটের গ্যাস দূর করতে সাহায্য করার মাধ্যমে পেট ফাঁপার সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে।

৪। কার্বোনেটেড পানীয়ের পরিবর্তে সাধারণ পানি বা চা বা কফি
বেশিরভাগ মানুষই মনে করেন যে কার্বোনেটাড পানীয় পেট ফাঁপার সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে, যা আসলে সত্যি নয়। এর পরিবর্তে তাজা ফলের রস, চা বা কফি অথবা পানি পেট ফাঁপার তীব্রতা কমাতে সাহায্য করে।

৫। পেঁয়াজের পরিবর্তে তাজা ভেষজ উদ্ভিদ ও মসলা
পেঁয়াজ গ্যাস সৃষ্টিকারী একটি খাবার। পেটফাঁপার সমস্যা খুব দ্রুত ঠিক করার একটি সহজ পন্থা হচ্ছে পেঁয়াজ খাওয়া বাদ দেয়া। পেঁয়াজের পরিবর্তে তাজা হারব ও মসলা যোগ করুন আপনার রান্নায়।

৬। গমের পরিবর্তে ওটস
আপনার যদি গ্লুটেনের প্রতি সংবেদনশীলতার সমস্যা থাকে তাহলে গম বাদ দিয়ে স্বাস্থ্যকর শস্য যেমন- ওটস খেতে পারেন। কারণ ওটস শুধু ফাইবারেই সমৃদ্ধ নয় এটি পেট ভরা রাখতেও সাহায্য করে এবং গ্যাসের নিঃসরণ ধীর করে।

৭। ক্রুসিফেরি পরিবারের সবজির পরিবর্তে শশা ও পালংশাক
ক্রুসিফেরি পরিবারের সবজি যেমন- ফুলকপি, বাঁধাকপি বা ব্রোকলি গ্যাস সৃষ্টি করে বলে পেটফাঁপার সমস্যাকে বৃদ্ধি করে। তাই এই সবজিগুলোর পরিবর্তে শশা ও পালংশাক খান। এগুলো পুষ্টিগুণ ও ফাইবারে সমৃদ্ধ হওয়ায় পেট ফাঁপার সমস্যা প্রতিরোধে সাহায্য করে।


সূত্র: দ্যা হেলথ সাইট

Please Login to comment and favorite this Health Tip
Next Health Tips: মেয়েদের তলপেটে ব্যথা
Previous Health Tips: রক্তের চর্বি কমানোর ছয় উপায়

আরও স্বাস্থ্য টিপ

পায়ে জ্বালাপোড়া?

পায়ের পাতা দুটি যেন মাঝেমধ্যে মরিচ লাগার মতো জ্বলে। কখনো সুঁই ফোটার মতো বিঁধে। ঝিম ঝিম করে বা অবশও লাগে। প্রায়ই এ ধরনের অনুভূতির কথা শোনা যায় রোগীদের মুখে। এ এক বিরক্তিকর ও যন্ত্রণাকর অনুভূতি। নানা কারণে, এমনকি মানসিক বিপর্যয়েও হতে পারে এই জ্বালাযন্ত্রণা। কিন্তু বেশির ভাগ ক্ষেত্রে পায়ের... আরও দেখুন

কর্মক্ষেত্রে প্রতিদিনের ব্যায়াম

বিশ্বের প্রায় ৫০ শতাংশ মানুষ বিভিন্ন ধরনের দাপ্তরিক বা অফিসের কাজে নিয়োজিত থাকেন। এর মধ্যে ৪০ থেকে ৮০ শতাংশ মানুষই জীবনে কোনো না কোনো সময় হাড়, সন্ধি, পেশির সমস্যায় আক্রান্ত হন যা তাঁদের দাপ্তরিক কাজের সঙ্গে জড়িত। স্বাস্থ্যকর উপায়ে কী করে দাপ্তরিক কাজ সম্পাদন করা যায়, তা নিয়ে... আরও দেখুন

শীতে বাতের ব্যথায় কষ্ট

শীতকালটা বাতব্যথার রোগীদের একটু খারাপই কাটে। শীতে বা ঠান্ডায় বাতের প্রকোপ বাড়ে এমন কোনো প্রমাণ নেই, তবে এ সময় ব্যথার কষ্ট বাড়ে এটা সর্বজন স্বীকৃত। যুক্তরাষ্ট্রের এক সমীক্ষায় ৬৭ দশমিক ৯ শতাংশ বাতের রোগী শীতে ব্যথা বেড়ে যাওয়ার কথা বলেছেন। যদিও আমাদের দেশে শীত অত তীব্র নয়, তবু বাতব্যথার রোগীরা... আরও দেখুন

প্রতিদিন একটু বাদাম

বিভিন্ন রকমের বাদাম পাওয়া যায় বাজারে। বাদাম খুবই ভালো মানের উদ্ভিজ্জ আমিষ। আমিষ ছাড়াও বাদামে রয়েছে যথেষ্ট পরিমাণে অসম্পৃক্ত চর্বি ও প্রচুর ম্যাগনেশিয়াম। অসম্পৃক্ত চর্বি বা ওমেগা ৩ চর্বি হৃদ্‌বান্ধব। এতে কোনো ক্ষতি নেই বরং এটি উপকারী। হার্ভার্ড স্কুল অব হেলথের একটি বৃহৎ গবেষণায় প্রমাণিত... আরও দেখুন

দুর্বলতা কাটিয়ে উঠুন সহজ কিছু উপায়ে

দুর্বল ও ক্লান্ত অনুভব করা খুবই সাধারণ একটি সমস্যা। তখন চোখগুলো এমন ভারী  হয়ে আসে যে সাধারণ কাজটাও করা যায়না। যদি প্রতিদিনই এই সমস্যা হয় তাহলে কী হবে? আপনার উৎপাদনশীলতা কমে যাবে এবং আপনার পারফরমেন্সের উপর প্রভাব পড়বে। এছাড়াও এটি কিছু অন্তর্নিহিত রোগকেও নির্দেশ করে। কিন্তু অনেক রোগীদের... আরও দেখুন

দীর্ঘক্ষণ প্রস্রাব আটকে রাখলে যেসব সমস্যা হতে পারে

আপনি যখন কোন মিটিং-এ থাকেন অথবা কোন গুরুত্বপূর্ণ ইমেইল পড়তে থাকেন তখন প্রাকৃতিক ডাকে সারা দেয়াটা আপনার কাছে কম গুরুত্বপূর্ণ হয়ে যায়। এছাড়াও আপনি হয়তো অফিসের টয়লেট ব্যবহার করতে অস্বস্তি বোধ করেন। বিশেষজ্ঞদের মতে আপনার কিডনির যত্ন নেয়ার অর্থই হচ্ছে আপনি কখন বিপদজনক বলয়ে প্রবেশ করছেন তা বুঝতে... আরও দেখুন

healthprior21 (one stop 'Portal Hospital')