home top banner

Blog

পিছিয়ে পড়া শিশুদের পিতামাতাদের ভুল বোঝার ১৫টি কারন
26 June,13
View in English

আপনি কি অবাক হন যখন দেখেন পিছিয়ে পড়া শিশুদের পিতামাতা একটু খেয়ালি কিংবা বাতিকগ্রস্থ আর দুর্বোধ্য আচরনে অভ্যস্ত! আমরা কেনই বা প্রায়শঃই অবাঞ্ছিত মন্তব্য করি? আর এই অবাঞ্ছিত-অপ্রাসঙ্গিক মন্তব্য নিয়ে কেনই বা হাসি-মস্করায় মেতে উঠি?

যে জীবনে আমরা বাস করি
পিছিয়ে পড়া শিশুদের অভিভাবকত্ব – একধরনের জীবনযাত্রা। আমরা যারা এধরনের জীবনে অভ্যস্ত, তাদের অনেকেই আসলে এটা চাই না। আর হ্যাঁ এধরনের জীবনযাপন করতে গিয়ে খেয়ালি কিংবা
বাতিকগ্রস্থ হয়ে পড়া ও তামাসা করার যথেষ্ট কারন রয়েছে।

পিছিয়ে পড়া শিশুদের পিতামাতাদের এধরনের দুর্বোধ্য আচরনের সম্ভাব্য ১৫টি কারনঃ
১। সকাল ৭টার আগেই হয়তো দুই পরত বিছানার চাদর পরিবর্তন করতে হয় এবং এমন এমন জায়গা থেকে পায়খানা পরিস্কার করতে হয়, যেখানে সচারচর কেউ ভাবতে পারে না।

২। হয়তো স্বামি-স্ত্রীর কেউ চা-কফি খেলেন, বাকিটা দেখা গেল রান্নাঘরের মেঝেতে ঢেলে নোংরা করে একাকার। অথচ একটু আগেই হয়তো পরিস্কার ছিল।

৩। Gastrostomy tube বা ‘g-tube’  ফরমুলায় খাবার খাওয়ানো, পরিস্কার করা, সময়মত স্কুলে পৌঁছানো, তারপর একের পর এক প্রতিবেশিদের অভিযোগ...।

৪। সারারাত না-ঘুমানো বাচ্চা নিয়ে জেগে থেকে আবার একের পর এক ফোন-কল পেয়ে জেগে ওঠা কতটা সহজ?

৫। সকালবেলা ওষুধ খাওয়াতে গিয়ে দেখলেন ওষুধ নেই। অথচ জীবন বাঁচাতে ওষুধগুলি অতীব জরুরী। আর দামের কথা বলছেন? পকেট থেকে যখন ৪০-৫০ হাজার টাকা বেরিয়ে যেতে থাকে মাসের পর মাস, তখন...।

৬। স্কুলে বাচ্চাদের ‘একগুঁয়েমি আচরন সংক্রান্ত নীতিমালা’ সম্পর্কে জানতে হবে। আর না হলে আপনাকে প্রায়ই নোটিস বা কারন দর্শানোর জবাব দিতে হবে।

৭। হয়তো তিন তিনবার এসংক্রান্ত নোটিসের জবাব যতদুর নম্রতার সাথে দেয়া যায় দিয়েছেন। তারপর...?

৮। চেঁচামেঁচি-হিংস্রতা একের পর এক লেগেই আছে। সামলানো কতটা কঠিন, ভুক্তভোগীরাই জানেন।

৯। কখনো কখনো এর ফলে জখম বা আঘাতপ্রাপ্ত হয়। ফল - হাসপাতালে দৌড়াদৌড়ি।

১০। হয়তো প্রয়োজন মূহুর্তে দেখলেন ঘরের সব রিমোট কন্ট্রোল ভাঙ্গা কিংবা উধাও।

১১। এরকম অবস্থায় কেউ যদি এসে বলে  “আপনার যা ধৈর্য্য, ঈশ্বর আপনাকেই বেছে নিয়েছেন এই ছেলের/মেয়ের বাবা/মা হিসাবে”...কেমন লাগবে!

১২। হয়তো অন্য আরেকজন এসে বলবে, “যে যা করতে পারে আল্লাহ আসলে তা-ই তাকে দেন” – কেমন লাগবে!
১৩। আপনি হয়তো গুরুত্বপূর্ন কাগজ সই করছেন, আর ঠিক তখনই চিৎকার চেঁচামেঁচি, দু’জনার মধ্যে মারামারি – কোনটা সামলাবেন?

১৪। অন্য প্রতিবন্ধি বাচ্চা যখন চেষ্টা করে নিজের কাজ নিজে করার যেমন নিজে নিজে ব্রাশ করা,ড্রেস পরা, জুতার ফিতা বাঁধা, তখন হয়তো আপনার বাচ্চা ব্রাশ করতে অস্বীকার করে, পোষাক পরতে চাচ্ছে না কিংবা জুতার ফিতে না বেঁধে মাটিতে গড়াগড়ি খাচ্ছে – কেমন লাগবে!

১৫। কোন বিবাহ অনুষ্ঠান কিংবা পারিবারিক পুনর্মিলনিতে যাবেন ভাবছেন, কিন্তু না আপনাকে সেটা ফিরিয়ে দিতে হচ্ছে নয়তো না যাওয়ার অজুহাত খুঁজতে হচ্ছে।
এরপরও কি বলবেন কেন খেয়ালি, কেন বাতিকগ্রস্থ, কেন দুর্বোধ্য আচরন?
 

10 comments

Si Tamim Ekbil Mamun - at 30 October,16

Sdfast

fgh - at 06 October,16

Bad gdkx

দফদফফফদফদ - at 16 August,14

দফদফফ

dsd - at 16 August,14

dsds

JIN - at 23 November,13

gdfsg - at 05 November,13

dfsgdfg

gdfgd - at 05 November,13

gdfsgdf

sdfsdf - at 05 November,13

fdasfsdafsdaf

sdfasd - at 05 November,13

sdfsdfsdf

aasa as as - at 06 August,13

ggg

Leave a comment

 
healthprior21 (one stop 'Portal Hospital')